শালীন পোশাকই মর্যাদাপূর্ণ

পোশাক মানবসভ্যতার প্রতীক। পোশাকের দ্বারা মানুষের রুচিবোধ ফুটে ওঠে। পোশাক দিয়ে মানুষ সম্মানিত হয়, আবার পোশাক দিয়েই মানুষ অসম্মানিত হয়। তাই পোশাকের গুরুত্ব মানবসভ্যতায় অপরিসীম। মুসলমান যেকোনো পোশাক পরতে পারেন না। পোশাকের ক্ষেত্রেও তাকে কিছু বিধিনিষেধ মেনে চলতে হয়। আশ্চর্যের বিষয় হলো আমাদের অনেকেই জানেন না যে, পোশাকের ক্ষেত্রে আবার বিধিবিধান থাকতে পারে। পোশাকের ব্যাপারে সঠিক জ্ঞানের অভাবে আমরা নানা ভুলভ্রান্তি ও শিথিলতার শিকার।

Continue reading শালীন পোশাকই মর্যাদাপূর্ণ

উম্মতে মুহাম্মাদির বৈশিষ্ট্য

মহান আল্লাহ উম্মতে মুহাম্মাদিকে বিশেষ কিছু গুণে ভূষিত করেছেন। এ জাতিকে তার গুণগুলোর যথাযথ ভাবার্থ অনুধাবনপূর্বক বাস্তব জীবনে তার সর্বশক্তি প্রয়োগ করে বিশ্বের সামনে তার শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করতে হবে। নতুবা পূর্ববর্তী উম্মতদের মতো তাদের লাঞ্ছনা-গঞ্জনায় নিপতিত হতে হবে।

আল কুরআনের বাণী, ‘আমি তোমাদের ভারসাম্যপূর্ণ জাতি করেছি’ (সূরা আল-বাকারাহ ১৪৩)। এ আয়াতের ওয়াসাত্তা শব্দটি উচ্চারণ ও লেখায় একটি সাধারণ শব্দ হলেও তাৎপর্যের দিক দিয়ে কোনো জাতি অথবা ব্যক্তির মধ্যে যত পরাকাষ্ঠা থাকা সম্ভব, সেগুলো পরিব্যাপ্ত করেছে। আয়াতে মুসলিম জাতিকে মধ্যপন্থী ও ভারসাম্যপূর্ণ বলে অভিহিত করে বলা হয়েছে, মানবীয় মর্যাদা ও শ্রেষ্ঠত্ব তাদের মধ্যে পরিপূর্ণভাবে বিদ্যমান।

Continue reading উম্মতে মুহাম্মাদির বৈশিষ্ট্য

জবানের হেফাজত করা জরুরি

আল্লাহর অপরিমেয় নিয়ামতের অন্যতম একটি হলো ‘জিহ্বা’। আরবিতে জিহ্বাকে লিসান বলে। ফারসিতে জবান। জবান মানুষের মূল স্পিড বা শক্তি। অন্যান্য প্রাণী থেকে ব্যবধানকারী। এর দ্বারা মানুষের শত সহস্র শুকরিয়া আদায় হয়। এর মাধ্যমে মানুষ পৌঁছে যায় মুত্তাকির উচ্চপর্যায়ে। জবানের সঠিক ব্যবহারে মানুষ যেমন পায় আল্লাহর নৈকট্য তেমনি এর অপব্যবহারে মানুষ পৌঁছে যায় নরকের গহিন অন্ধকারে।
হাদিস শরিফে হজরত সাহল ইবনে সাদ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূল সা: বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি আমার কাছে ওয়াদা করবে যে, সে তার দুই চোয়ালের মধ্যস্থিত বস্তু (জবান) ও দুই রানের মধ্যে অবস্থিত বস্তুর (লজ্জাস্থান) নিরাপত্তা করবে, আমি তার জন্য বেহেশতের জামিন হবো।’

Continue reading জবানের হেফাজত করা জরুরি

মুমিন ও মুসলিম : দু’টি পরিভাষা

‘মুমিন’ ও ‘মুসলিম’ শব্দ দু’টি আমাদের অতি পরিচিত। শব্দ দু’টিকে আমরা সব সময় ব্যবহার করে থাকি, নিজের বা অন্যের জন্য। তবে অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়, বুঝে-না-বুঝে আমরা নির্বিচারে এ শব্দ দু’টিকে ব্যবহার করতে অভ্যস্ত হয়ে পড়েছি। সমাজসংসারে চলতে এমন ঘটনা আমাদের মাধ্যমে অহরহ ঘটে চলেছে। ফলে অনেক অর্থবহ শব্দ বা বিষয়ের ব্যবহার করতে গিয়ে অবলীলায় অপব্যবহার বা অসদ্ব্যবহার করাটা আমাদের সমাজে এখন গা সওয়া একটা বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। যাক সে কথা, অনেকে এ দু’টিকে সমার্থক মনে করে থাকেন। আসলে তা নয়; এরা একে অন্যের সাথে নিবিড়ভাবে সম্পর্কিত। সহজ কথায়, ‘মুমিন’ মানে বিশ্বাসী। অর্থাৎ যিনি আল্লাহর একত্বে ঈমান এনেছেন। আর ঈমানের অপর অর্থ দৃষ্টিভঙ্গি। অপর দিকে, ‘মুসলিম’ মানে অনুগত। ইসলামি বিধান মতে, আল্লাহতে বিশ্বাসী মানুষকে মুমিন বলা হয়। আর ইসলামের যাবতীয় বিধানের কাছে অনুগত বা আনুগত্য প্রকাশকারীকে ‘মুসলিম’ বলা হয়।

Continue reading মুমিন ও মুসলিম : দু’টি পরিভাষা

ইসলাম একটি জীবনব্যবস্থা

মহান আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘হে ঈমানদারগণ, তোমরা পরিপূর্ণভাবে ইসলামে প্রবেশ করো’ (সূরা বাকারা : ২০৮)। ইসলামকে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন সব মানুষের জন্য দ্বীন হিসেবে, চলার পথ হিসেবে আল্লাহর পক্ষ থেকে মনোনীত করে দিয়েছেন। ইসলাম ধর্মে যেমন ইবাদতের বিধান আছে, ঠিক তেমনি পারিবারিক, সামাজিক, রাজনৈতিক, রাষ্ট্রীয় বিধানও রয়েছে। কাজেই মানুষের সমাজে বসবাস করতে গেলে যত কিছু প্রয়োজন সব ক্ষেত্রেই আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের নিয়মনীতি আছে। এসব নিয়মনীতি বাস্তবায়ন করতে গেলে ইসলামি সমাজ প্রতিষ্ঠা করতে হয়। আর ইসলামি সমাজ প্রতিষ্ঠার রাজনীতি ইসলাম ধর্মের অন্যতম বিধান। কাজেই ইসলাম ও রাজনীতির মধ্যে সম্পর্ক অবিচ্ছেদ্য।

Continue reading ইসলাম একটি জীবনব্যবস্থা

মুমিন আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হয় না

প্রাণী হিসেবে মানুষ চতুর, জ্ঞান-বুদ্ধি-বিবেক সম্পন্ন অতীব সুন্দর ও শ্রেষ্ঠ। আবার অন্যান্য প্রাণী থেকে মানুষের জীবন পরিচালনাপদ্ধতিও আলাদা ও ভিন্ন। মানুষ বিপদে পড়লে অন্য মানুষ সাহায্য করে, অসুখ করলে অন্য একজন মানুষ তার চিকিৎসা করেন, অন্য কেউ তার সেবা করেন। অর্থাৎ বিপদাপদে একজন মানুষ অন্য একজন মানুষকে সাহায্য-সহযোগিতা করে, যা অন্য প্রাণীদের মধ্যে সচরাচর দেখা যায় না। তার পরও মানুষ বিপদে পড়ে অস্থির হয়। সেখান থেকে কেউ পরিত্রাণের উপায় খোঁজেন, নিজেকে উদ্ধার করেন।

Continue reading মুমিন আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হয় না