কুরআনের সম্মোহনী শক্তি

আল কুরআন অবতীর্ণের প্রাক্কালে স্বয়ং কুরআনই আরবদেরকে এর সম্মোহনী শক্তিতে সম্মোহিত করেছিল। যার অন্তরকে আল্লাহর ইসলামের জন্য উন্মুক্ত করে দিয়েছিল তিনি এবং যাদের মনের ওপর ও চোখের ওপর পর্দা পড়ে গিয়েছিল তারাও এ কুরআনের সম্মোহনী প্রভাবে প্রভাবিত হয়েছে। যদিও তারা এ কুরআন থেকে কোনো উপকৃত হতে পারেনি। কিন্তু কতিপয় ব্যক্তিত্ব এমন ছিল, যারা শুধু নবী করীম সা:-এর স্ত্রী মুহতারামা খাদিজা রা:, তাঁর মুক্ত করা ক্রীতদাস হজরত যায়িদ রা: প্রমুখ। এঁদেরকে ছাড়া প্রাথমিক অবস্থায় যারা ইসলাম গ্রহণ করেছিল, তখন রাসূল সা: এত বেশি শক্তি ও মতাশালী ছিলেন না যে, তাঁরা তাঁর মতা ও শক্তিমত্তায় বিমোহিত হয়ে ইসলাম গ্রহণ করেছিল। বরং তাঁদের ইসলাম গ্রহণের মূলে ছিল আল কুরআনের মায়াবী আকর্ষণ।
Continue reading কুরআনের সম্মোহনী শক্তি

কুরআন যে কারণে মহাবিস্ময়

মিসরের পিরামিড ও ভারতের তাজমহলসহ পৃথিবীতে রয়েছে বহু বিস্ময়কর দর্শনীয় স্থান, যা দেখে পর্যটকমাত্রই বিস্ময়ে অভিভূত হয় । এক কালের মার্কিন ফার্স্টলেডি হিলারি কিনটন তাজমহল দেখে আফসোস করে বলেছিলেন, আহ! আমি যদি এখানে থাকতে পারতাম! কুরআনে কারিমের বিস্ময়কারিতা দুনিয়ার সব বিস্ময়ের ওপরে।

Continue reading কুরআন যে কারণে মহাবিস্ময়

কুরআনের চর্চা হোক প্রতিদিন

প্রতিটি রমজান মাসে আমরা আনন্দের সাথে লক্ষ করি, বাড়িতে বাড়িতে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের পক্ষ থেকে প্রেরিত আসমানি কিতাব কুরআনুল কারিমের চর্চা হয়। কুরআনুল কারিমকে নিয়ে পর্যালোচনা হয়। মা আয়েশা সিদ্দিকা রা:-কে যখন জিজ্ঞেস করা হয়েছিল নবী করিম সা:-এর জীবনযাপন কেমন? তিনি উত্তর দিয়েছিলেন, ‘নবী করিম সা: হচ্ছেন জীবন্ত কুরআন’। অর্থাৎ মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের পক্ষ থেকে প্রেরিত কুরআনুল কারিমের প্রতিটি অক্ষর মহানবী সা: পালন করতেন।

Continue reading কুরআনের চর্চা হোক প্রতিদিন

আল কুরআন : অভিযোগ ও জবাব

সুপরিকল্পিতভাবে কুরআন তথা ইসলামকে হেয় প্রতিপন্ন করার উদ্দেশ্যে সত্যকে বাদ দিয়ে ডাহা মিথ্যা ব্যাখ্যা করে প্রচার করা হচ্ছে। নিচে ‘মরিস বুকাইলি’র বই থেকে ‘এনসাইকোপিডিয়া ইউনিভার্সালি’র ষষ্ঠ খণ্ডের এমন একটি রচনার উদাহরণ তুলে ধরা হলো। ‘গসপেল’ বা সুসমাচার শীর্ষক অধ্যায়ে লেখক ইচ্ছাকৃতভাবে কুরআনের সাথে সুসমাচারের (ইঞ্জিল ১-৪ খণ্ডের) পার্থক্য তুলে ধরেছেন এভাবেÑ ‘সুসমাচারের লেখকবৃন্দ… কস্মিনকালেও… কুরআনের মতো এই দাবি করে নাই যে, স্রষ্টা স্বয়ং অলৌকিক উপায়ে পয়গম্বরের নিকট একখানা আত্মজীবনী অবতীর্ণ করেছেন।’

Continue reading আল কুরআন : অভিযোগ ও জবাব

কোরআনের দৃষ্টিতে সফলতার কিছু আমল

ফালাহ ও সফলতা শব্দ দুটি কোরআন ও হাদিসের বহু ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়েছে। দুনিয়াবি দৃষ্টিকোণ থেকে সফলতা হচ্ছে সব মনোবাঞ্ছা পূরণ হওয়া, সব ধরনের দুঃখ-কষ্ট থেকে বেঁচে থাকা এবং কোনো অবাঞ্ছিত অবস্থার সম্মুখীন না হওয়া। তবে মানুষের প্রকৃত সফলতা হচ্ছে ইহলৌকিক ও পারলৌকিক সফলতা। আর এই সফলতা অর্জনের জন্য সাতটি গুণ অর্জনের ভূমিকা অনেক বড়।
প্রথম গুণ : নামাজে খুশু-খুজু তথা বিনয়, নম্রতা ও স্থিরতা অর্জন করা। নামাজের অন্য রুকনগুলো হচ্ছে দেহের সমতুল্য, আর ইখলাস ও খুশু-খুজু হচ্ছে প্রাণতুল্য। তাই নামাজের খুশু-খুজুকে মুমিনের সফলতার সর্বপ্রথম শর্ত হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে।

Continue reading কোরআনের দৃষ্টিতে সফলতার কিছু আমল

মধুর প্রতিদান কোরআন তেলাওয়াতে

কোরআন তেলাওয়াত একটি পুণ্যময় ইবাদত। ধর্মপরায়ণ লোকেরা কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে অতি উত্তম পন্থায় আল্লাহ তায়ালার নৈকট্য অর্জন করে। রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, ‘নিশ্চয়ই এ কোরআন আল্লাহর ভোজসভা, তোমরা সথাসাধ্য আল্লাহর ভোজসভায় উপস্থিহ হও। কোরআন আল্লাহর রজ্জু, সুস্পষ্ট আলো এবং উপকারী চিকিত্সা। যে কোরআনকে আঁঁকড়ে ধরবে, সে পাপ-পঙ্কিলতা ও অপবিত্রতা থেকে রক্ষা পাবে। যে কোরআন অনুসরণ করবে সে নাজাত পাবে, সে পথভ্রষ্ট হবে না বরং আল্লাহর নিয়ামত ও সন্তুষ্টি পাবে। সে বাঁকা পথে যাবে না বরং সহজ সরল পথে পরিচালিত হবে। (মিশকাত)

Continue reading মধুর প্রতিদান কোরআন তেলাওয়াতে